আটলান্টা

জর্জিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় বাংলাদেশি কিশোরী নিহত

samaraজীবনের সামনে চলার শুভারম্ভেই সকল আয়োজনের সমাপ্তি টেনে চলে যেতে হলো হাস্যোজ্জ্বল কিশোরী সামারা ইসলামকে। জর্জিয়া রাজ্যের আটলান্টার প্রাণোচ্ছল এই কিশোরী ১৯ সেপ্টেম্বর সোমবার টেনেসির ন্যাশভিলে যাওয়ার পথে মারাত্মক সড়ক দুর্ঘটনায় মর্মান্তিকভাবে আহত হয়ে মৃত্যুকেই আলিঙ্গন করে নিল তাৎক্ষণিকভাবে। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল মাত্র ১৪ বছর।
সামারার দুইজন ঘনিষ্ঠ স্বজন ফজলে রাব্বি ও নাহিদ ফিরোজ জানান, সামারা তার মার সঙ্গে গাড়িতে করে জর্জিয়া রাজ্যের মেট্রো আটলান্টার লিলবার্ন থেকে টেনেসি রাজ্যের ন্যাশভিলে যাওয়ার সময় ডালটন শহরের কাছে একটি লরির সঙ্গে আকস্মিকভাবে ধাক্কা লাগে। ঘটনাস্থলেই গুরুতর আহত সামারা মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। অন্যদিকে মা ফাতেমা সাদিয়াকে গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয় হাসপাতালের ইমারজেন্সি বিভাগে ভর্তি করানো হয়েছে।
জানা গেছে, সামারার বাবা আমির ইসলাম ন্যাশভিল এটিঅ্যান্ডটি কোম্পানিতে নেটওয়ার্ক ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে কর্মরত থাকার কারণে বাবার সঙ্গেই বাস করত সে এবং সেখানকার ন্যাশভিল ব্রেন্টউড হাইস্কুলে নবম গ্রেডে পড়াশোনা করত। অন্যদিকে মা বাস করেন আটলান্টার লিলবার্ন শহরে।
প্রয়াত সামারা ওই দিন মার বাসা থেকে উইকএন্ডের ছুটি শেষে বাবার ন্যাশভিলের বাসায় যাচ্ছিল এবং ডালটন এলাকায় এলে পথে রাত সাড়ে নয়টায় এই মারাত্মক দুর্ঘটনাটি ঘটে।

উল্লেখ্য, গত রমজান মাসে আটলান্টার ডোরাভিল এলাকার কিশোর আদিলের পানিতে ডুবে মৃত্যুর পর এই কয়েক দিনের ব্যবধানে ফুলের মতো বিকশিত আরও এক কিশোরীর মর্মান্তিক মৃত্যুর এই ঘটনাটি ঘটল। সামারা বাবা-মার একমাত্র সন্তান বলে জানা গেছে।
এদিকে প্রয়াত সামারা ইসলামের নামাজে জানাজা আজ বুধবার লরেন্সভিলের ইসলামিক সেন্টার মসজিদে আসরের নামাজের পর অনুষ্ঠিত হবে বলে পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে। জানাজায় আটলান্টার সকল বাংলাদেশিকে অংশগ্রহণ করার অনুরোধ জানানো হয়েছে। কিশোরী সামারার এই আকস্মিক মৃত্যুতে আটলান্টার বাংলাদেশি কমিউনিটিতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

আপনার মন্তব্য জানান