প্রবাস জীবন

কাম্বারল্যান্ড জলপ্রপাতের পাশে এক দুপুর

falls1ঈদের পর তিন দিন স্মোকি মাউন্টেনে অবকাশ যাপন করে বাড়ি ফেরার পথে ঘুরে এলাম কাম্বারল্যান্ড জলপ্রপাত। জলপ্রপাত বললেই ভেসে আসে নায়াগ্রা জলপ্রপাত। পাহাড়ি আঁকাবাঁকা পথ পেরিয়ে আমরা যখন জলপ্রপাতের পাশে পৌঁছালাম তখন মধ্য দুপুর। গাড়ি থেকে বের হতেই কানে এল পানির গর্জন। অপরূপ জলপ্রপাত—বিশাল পাথরের পর্বত আর সবুজে ঘেরা এই জলধারার সৌন্দর্যের কারণে একে বলে দক্ষিণের নায়াগ্রা।

বাংলাদেশ থেকে বেড়াতে আসা এক পরিবারসহ চার পরিবার একসঙ্গে ভ্রমণে কাম্বারল্যান্ড জলপ্রপাত ছিল এক বোনাস প্রাপ্তি। অপরূপ জলপ্রপাতটি ১২৫ ফুট বিস্তৃত ও ৬৮ ফুট উঁচু। সাততলা ভবনের সমান উঁচু এ জলধারা দিয়ে প্রতি সেকেন্ডে ৩ হাজার ৬০০ ঘনফুট পানি প্রবাহিত হয়।
ভূতাত্ত্বিকদের মতে কাম্বারল্যান্ড নদীর দুই পাশে পাথরের পর্বত প্রায় ২৫০ মিলিয়ন বছরের পুরোনো। প্রাগৈতিহাসিক সময় থেকে দর্শনার্থীদের প্রিয় এই স্থান। জলপ্রপাতটি যুক্তরাষ্ট্রের কেনটাকি অঙ্গরাজ্যের দক্ষিণ অংশে ড্যানিয়াল বোন ন্যাশনাল ফরেস্টের ভেতরে। দশ হাজার বছর আগে থেকেই জলপ্রপাতের চারপাশে বিশাল আকারের পাথরের গুহায় বসবাস করত আদিবাসীরা। পশুপাখি শিকার ছিল তাদের জীবিকার মাধ্যম।
গাড়ি ও মোটরসাইকেল পার্ক করার জন্য বিস্তর জায়গা। পার্কিং ফ্রি। রয়েছে দর্শনার্থীদের জন্য বিশ্রাম টেবিল, পিকনিক বেঞ্চ ও বারবিকিউ করার জন্য স্ট্যান্ড। জলপ্রপাত ওপর থেকে দেখার জন্য টপ স্ট্যান্ড। সামনে থেকে দেখার জন্য লোয়ার স্ট্যান্ড ও নিচ থেকে দেখার বেস স্ট্যান্ড। স্ট্যান্ডে পৌঁছার জন্য পাকা সিঁড়ি। গিফট স্টোর, আইসক্রিম বার এবং পুরুষ ও নারীদের জন্য টয়লেট রয়েছে।
falls2জলপ্রপাতটি উত্তরমুখী। যা এ জলধারাকে দিয়েছে এক অনন্য সৌন্দর্য। বছরে ১৩ বার পূর্ণিমার রাতে চাঁদের আলোয় জলধারার ওপর এক চমৎকার রঙের আবির্ভাব হয়। দিনের আলোয় বৃষ্টি কিংবা বাষ্পে হয় রংধনু তেমনি চাঁদের আলোয় এ রংধনুকে আমি বলব চন্দ্রধনু। ইংরেজিতে বলে মুনবৌ। কাম্বারল্যান্ড জলপ্রপাত ছাড়া পৃথিবীতে আর মাত্র একটি জলপ্রপাতে এ চন্দ্রধনুর দেখা মেলে। আফ্রিকার জাম্বিয়ায় ভিক্টোরিয়া জলপ্রপাতে এ অপরূপ দৃশ্যের অবতারণা হয়। আকাশ পরিষ্কার থাকলে চাঁদের আলো সরাসরি পানির ওপর প্রতিফলিত হয়ে অনন্য এক স্বপ্নিল সৌন্দর্যের সৃষ্টি হয়। জ্যোৎস্নার আলোয় অঝোর ধারায় বয়ে চলা জলের এ সৌন্দর্য দেখার সৌভাগ্য আমাদের হয়নি, হয়তো ভবিষ্যতে কোনো দিন ভাগ্য হবে মায়াময় মুহূর্তটি উপভোগ করার। জলপ্রপাতে মধ্যদুপুরে রোদের আভায় ক্লান্ত হয়ে আবার যাত্রা শুরু করি বাসার উদ্দেশে। উজ্জ্বল কুমার সূত্রধর, মাসুদ রানা, রেদোয়ান চৌধুরী, মণি সুদীপ্ত ও মারিওল ফারিয়া সফরসঙ্গী হওয়ায় তাদের অসংখ্য ধন্যবাদ।
কাম্বারল্যান্ড জলপ্রপাত কেনটাকি অঙ্গরাজ্যের করবিন শহরের ২০ মাইল দক্ষিণ পশ্চিমে। ইউএস ২৫ (পশ্চিম) থেকে কেওয়াই ৯০ হাইওয়ে দিয়ে যেতে হবে। আন্ত অঙ্গরাজ্য (ইন্টার স্টেট) আই ৭৫ দক্ষিণের এক্সিট ২৫ অথবা আই ৭৫ উত্তরের এক্সিট ১৫ নিতে হবে।

আপনার মন্তব্য জানান