সংস্কৃতি ও বিনোদন

আটলান্টিক সিটিতে বাংলাদেশ মেলা

atlanticবঙ্গোপসাগরের বুক চিরে জেগে ওঠা নতুন ভূখণ্ডের মতো আটলান্টিক মহাসাগর বিধৌত আটলান্টিক সিটির বুকে যেন জেগে উঠেছিল একখণ্ড মিনি বাংলাদেশ। বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সাউথ জার্সির উদ্যোগে সেন্ড ক্যাসল স্টেডিয়ামের সুবিশাল প্রান্তরে ২ আগস্ট মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত হলো বাংলাদেশ মেলা ২০১৬। মেলার হরেক আয়োজনের মধ্যে ছিল দেশীয় পণ্যের বিকিকিনি, খাবারের স্টল, র‍্যাফেল ড্র ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

মেলায় প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল শামীম আহসান। বিশেষ অতিথি ছিলেন পিপল টেকের সিইও আবু হানিফ। অতিথি হিসেবে ছিলেন আটলান্টিক সিটির মেয়র ডন গার্ডিয়ানসহ সিটি কাউন্সিলর ও পদস্থ কর্মকর্তারা।
বিকেল থেকেই প্রবাসী বাংলাদেশিরা মেলায় সমবেত হতে থাকেন। বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্রে বেড়ে ওঠা শিশু-কিশোরদের অংশগ্রহণ ছিল উল্লেখযোগ্য। হাতে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা, কপালে জাতীয় পতাকার ব্যান্ড বেঁধে ও জাতীয় পতাকার রঙের পোশাক পরে তারা মেলায় যোগ দেয়। তাদের উৎসাহ ও উচ্ছ্বাস ছিল চোখে পড়ার মতো। সারাক্ষণ নেচে-গেয়ে তারা মেলা প্রান্তরকে মুখরিত করে রাখে।
বিকেল ৬টায় শামীম আহসানের সূচনা বক্তব্য শেষে বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় সংগীত পরিবেশনের পর বেলুন উড়িয়ে বাংলাদেশ মেলার শুভ উদ্বোধন করা হয়। এ সময় বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সাউথ জার্সির সভাপতি জহিরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক নুরুন্নবী চৌধুরী, বাংলাদেশ মেলার আহ্বায়ক কে এম দিদারুল আলম, মোক্তাদির রহমান, রহমান বাবুল, আবদুর রফিক, মো. গিয়াসউদ্দিনসহ বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশনের অন্যান্য নেতারা উপস্থিত ছিলেন।
বিভিন্ন পর্যায়ে বক্তব্য দেন কে এম দিদারুল আলম, জহিরুল ইসলাম, আবদুর রফিক ও মো. গিয়াসউদ্দিন প্রমুখ। মেলায় কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধিত করা হয়। দেশীয় পণ্য ও খাবারের স্টলগুলোতে বিকিকিনি ছিল লক্ষণীয়। মেলায় প্রায় ৩০টি স্টল ছিল।
সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন সংগীত শিল্পী শাহ মাহবুব, রাজিব ভট্টাচার্য, সায়রা রেজা, কানিজ সুবর্ণ ও ক্লোজ আপ তারকা শশী। তারা বিভিন্ন ধরনের গান পরিবেশন করে দর্শকদের মাতিয়ে রাখেন। দর্শকেরা শিল্পীদের গানের সঙ্গে নেচে-গেয়ে আনন্দ করেন।
বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ঝুলন কবিতা আবৃত্তি করেন বাচিক শিল্পী সুব্রত চৌধুরি। নাচ পরিবেশন করে তুসাইতা ইসলাম ও রাহাত চৌধুরী। অনুষ্ঠান উপস্থাপনায় ছিলেন প্রবাসের জনপ্রিয় উপস্থাপক বুলবুল হাসান।
র‍্যাফেল ড্রর মাধ্যমে মেলার সমাপ্তি হয়। ঘড়ির কাঁটা মধ্যরাত ছুঁতেই মেলার যবনিকা ঘটে। এক সময় নিভে আসে মেলার আনন্দ আলো। প্রবাসীরা নিজ নিজ ডেরায় ফিরে যায় মুঠো মুঠো সুখস্মৃতি নিয়ে, আর সফল মেলা আয়োজনের জন্য আয়োজকদের হাজারো ধন্যবাদ জানিয়ে।

আপনার মন্তব্য জানান